সোমবার, মে ১৭, ২০২১
Home country করোনা বিধি ভাঙলে শাস্তি প্রাপ্য কিন্তু জেলাশাসককে গায়ে হাত তোলার অধিকার কে...

করোনা বিধি ভাঙলে শাস্তি প্রাপ্য কিন্তু জেলাশাসককে গায়ে হাত তোলার অধিকার কে দিয়েছে?

১১৬ Views

বিশ্বজিৎ মান্না
এতদিনে হয়তো আপনি জেনে গিয়েছেন, করোনা ফের দেশে ভয়াবহ আকার নিচ্ছে। সেটা আর নতুন কোনো খবর নয়। ব্রেকিং নিউজের ইঁদুর দৌড়ে থাকা অনেকের মাধ্যমে আপনি সেটা জানতে পেরেছেন। শারীরিক দূরত্ব (সামাজিক নয়) বজায় রাখা, মাস্ক পরা বা স্যানিটাইজ ব্যবহার করার উপর ফের গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। এসবের মাঝেই সোশ্যাল মিডিয়ায় সম্প্রতি চর্চার বিষয় হয়ে উঠেছে ত্রিপুরার একটি ভাইরাল ভিডিও। ভিডিওর সত্যতা কতটুকু, সেটা কেউ যাচাই করেছে কী না জানা নেই। তবে কয়েকটি সংবাদ চ্যানেলে দেখা গেল, সেই ভিডিও দেখানো হচ্ছে। অর্থাৎ ভিডিওটাযে ফেক নয়, সেটা আপাতভাবে ধরে নেওয়া যেতে পারে।

ভিডিওতে কী রয়েছে? ত্রিপুরার আগরতলায় এক বিয়েবাড়ি। বেশ কিছু লোকজন উপস্থিত রয়েছেন। সেখানে পুলিশ নিয়ে হঠাৎ হাজির ত্রিপুরা পশ্চিমের জেলাশাসক ড. শৈলেন্দ্র কুমার যাদব। এবং দৃশ্য দেখে স্পষ্ট, মিডিয়ার লোকজন বা ক্যামেরা নিয়ে তার সামনে কেউ আগে থেকেই ছিলেন, যিনি সম্পূর্ণ ঘটনা ক্যামেরাবন্দী করেছেন। বিয়েবাড়িতে দেখা যাচ্ছে প্রায় সবার মুখেই মাস্ক। তবে জেলাশাক সেখানে গিয়ে কড়া সুরে বলেন, সব্বাইকে অ্যারেস্ট করতে হবে। কারণ তারা করোনা বিধি ভেঙে এই বিয়ের অনুষ্ঠান করছেন। অত্যন্ত বিনয়ের সাথে জেলাশাকের সাথে যেই কেউ কথা বলতে যাচ্ছেন, অমনি জেলাশাসক সবাইকে ধমকে, চমকে বলছেন, তাদের ঠাঁই হবে জেলে। সেই মতো তিনি তার সাথে থাকা পুলিশকে নির্দেশ দিচ্ছেন।

ঘটনার এই পর্যন্ত যে বিবরণ দেওয়া হল, তাতে আপনি ভাবছেন, এতে অন্যায়ের কী আছে। করোনাকালে বিয়ে বাড়িতে বিপুল জনসমাগম হলে পুলিশ বা প্রশাসন ব্যবস্থা নেবেই। একদম ঠিক ধরেছেন। কিন্তু প্রশ্ন ভিডিওর পরবর্তী অংশ নিয়ে। যদি ভিডিওটি সম্পূর্ণ কেউ দেখেন তাহলে দেখতে পাবেন, জেলাশাসকের রোষের মুখে পড়েছেন এক বয়স্ক ভদ্রলোক। তার পোষাক দেখে মনে হচ্ছে, তিনি পুরোহিত। সম্ভবত বিয়ে করানোর দায়িত্ব ছিল তার উপর। ওই পুরোহিত বয়সে জেলাশাসকের বাবার বয়সী বলা চলে। জেলাশাসক তাকে দেখা মাত্রই সজোরে তার মাথায় এক চাঁটি মারলেন। শুধু তাই নয়, ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, এর পরই ওই পুরোহিতের পেছনে সটান লাথিও চালালেন জেলাশাসক (ভিডিওতে এই দৃশ্যটি সম্পূর্ণ দেখা না গেলেও জেলাশাসকের জেশ্চার বলছে তিনি লাথি চালিয়েছেন)! বিয়েতে হাজির মহিলাদের সাথেও এক প্রকার দুর্ব্যবহার করছেন। কেউ অনুরোধের সুরে কিছু বললেও তাকে ধমকে, চমকে গারদে পুরে দেওয়ার হুমকি। ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে এক আমন্ত্রিতকে লাঠি পেটা করছে পুলিশ। তখন এক অফিসার, সম্ভবত জেলাশাক বলছেন, “Hit him bloody ass-whole”। এটা কোন ধরনের ভদ্র, সভ্য ভাষা।

করোনা বিধি ভাঙলে জেলাশাসক কড়া পদক্ষেপ নেবেন। কিন্তু কতটা অমানবিক হলে একজন বয়স্ক, প্রবীণ নাগরিক, বাবার সমান বয়সী লোকের মাথায় চাঁটি মারা যায় বা তার পিছনে লাথি মারা যায়? মহিলাদের সাথে এভাবে দাম্ভিক সুরে কথা বলা যায়? সম্ভবত যিনি বর, তাকে ধমকে ক্যামেরার সামনে জেলাশাসক বলছেন, “What is your name?” এই করোনা মহামারিতে যারা করোনাবিধি ভাঙছেন, তাদের শাস্তি পেতে হবে। সেখানে জাস্টিফিকেশনের কোনো জায়গা নেই। তবে এই ভিডিও যদি সত্যি হয়, তাহলে অন্তত জেলাশাকের মতো একজন ভদ্র, শিক্ষিত, উচ্চপদস্থ আমলার এরকম আচরণ একটা সিভিল সোসাইটি কোনোদিনও মেনে নিতে পারে না। কারও গায়ে হাত তোলার ক্ষমতাও জেলাশাককে কেউ দেয়নি। আইনে অন্তত সেরকম কোনো সংস্থান নেই।

আরও একটি বিষয় এখানে উল্লেখ করা প্রয়োজন। ওপইন্ডিয়া ডট কমের একটি প্রতিবেদন থেকে জানা গিয়েছে, পাত্রীর ভাই শুভ্রজিৎ দেবের দাবি, এই বিয়ের অনুষ্ঠানের জন্য জেলাশাসকের অফিস থেকে তারা অনুমতি নিয়েছিলেন। সেই অনুমতিপত্রের ছবি তিনি সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করেছেন।

আরও একটা সমস্যা হল সস্তায় ইন্টারনেট পাওয়ার পর সোশ্যাল মিডিয়ায় অতি সক্রিয় হয়ে ওঠা এক দল মূর্খ জনগণ। তাদের কাজই হল, সোশ্যাল মিডিয়ায় কিছু দেখলে, সেখানে গিয়ে হেগে মুতে আসা। বসের কাছে রোজ খিস্তি খাওয়ার রাগটা সেখানে দেখানো। দুম করে জাজমেন্টাল হয়ে যাওয়া। এ বড় অসুখ। করোনার চাইতেও এই অসুখ বড় কঠিন এবং কবে সারবে তা বলা মুশকিল। নাগরিক হিসাবে আমার একটা প্রশ্ন, প্রশাসন কোথায় ছিল যখন কয়েকদিন আগেই প্রায় রোজ যখন হাজারে হাজারে, লাখে লাখে মানুষ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সভায় অংশগ্রহণ করছিলেন, তখন প্রশাসন কতটা সক্রিয় ছিল? দু লাইন ইংরেজী বললেই বুঝি বড় অফিসার হয়ে ওঠা যায়! না কী বাঙালি পরিবারের বিয়ে বলে যত হম্বি তম্বি সেখানে! উত্তরপ্রদেশের কোনো বিয়েতে গিয়ে কী শৈলেন্দ্র কুমার এটা করতে পারতেন?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

সুন্দরবনে বাঘের আক্রমণে ফের মৃত্যু

শাহীন বিল্লা, সাতক্ষীরাসুন্দরবনে মধু আহরণ করতে গিয়ে বাঘের আক্রমণে রেজাউল ইসলাম নামে এক মৌয়াল নিহত হয়েছেন। শুক্রবার (১৪ মে) বিকেলে বাংলাদেশের পশ্চিম...

দৈনিক সুন্দরবনের সাংবাদিককে মারধর

দৈনিক সুন্দরবন ওয়েবসাইটের এক সাংবাদিককে মারধর করার অভিযোগ উঠল কুলতলিতে। কোভিড বিধি না মেনে শুক্রবার কুলতলীর রামকৃষ্ণ আশ্রমের কাছে জেটিঘাটে অনেকে ভিড়...

বিনামূল্যে ভ্যাকসিন দিতে হবে: মোদিকে চিঠি বিরোধীদের

ভারতে কোভিড-১৯ পরিস্থিতি ক্রমশই উদ্বেগজনক হয়ে উঠছে। হাসপাতালো রুগীর জায়গা নেই। অক্সিজেনের অভাব। ভ্যাকসিনের অভাব। সব মিলিয়ে স্বাস্থ্যকর্মীদেরও রাতের ঘুম উড়ে গিয়েছে।...

অতিমারির অন্ধকারে ঈদে চাঁদ যেন আশার আলো

সীতাংশু ভৌমিক, ফরিদপুর (বাংলাদেশ) প্রতিবছর ঈদ আসে, পরিযায়ী শ্রমিক-কর্মজীবী মানুষেরা স্বজনদের কাছে ফিরে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ঢাকা, গাজীপুর, নারায়ণগঞ্জ থেকেই...

Recent Comments

error: Content is protected !!