বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ১৫, ২০২১
Home country মহারাষ্ট্রে ঠাকরে পরিবারের প্রথম সদস্য হিসেবে মুখ্যমন্ত্রী হচ্ছেন উদ্ধব

মহারাষ্ট্রে ঠাকরে পরিবারের প্রথম সদস্য হিসেবে মুখ্যমন্ত্রী হচ্ছেন উদ্ধব

২৪৪ Views

মহারাষ্ট্রের রাজনীতিতে শিবসেনা অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার। ভারতের আঞ্চলিক দলগুলির মধ্যে অন্যতম এই দলের নারায়ণ রাণে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হয়েছিলেন। তবে ঠাকরে পরিবারের কেউ এর আগে মহারাষ্ট্র প্রশাসনের শীর্ষে বসেননি। তবে এবার সেই ছবি বদলাতে চলেছে। মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিচ্ছেন শিবসেনা প্রধান উদ্ধব ঠাকরে। বিজেপিকে হঠিয়ে তিনটি দলকে নিয়ে এই রাজ্যে জোট সরকার গঠিত হচ্ছে। শিবসেনা, ন্যাশনালিস্ট কংগ্রেস পার্টি এবং কংগ্রেসকে নিয়ে গঠিত এই জোট সরকারের মুখ্যমন্ত্রী হচ্ছে শিবসেনা প্রধান উদ্ধব। তিন দলের এই জোটের পোশাকি নাম দেওয়া হয়েছে মহা বিকাশ আঘাড়ি।

১৯৬৬ সালে গঠিত একটি আঞ্চলিক দল শিবসেনা এই প্রথম সরকার গঠনের জন্য কংগ্রেস এবং এনসিপির হাত ধরল। মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নেওয়ার ছয় মাসের মধ্যে উদ্ধবকে মহারাষ্ট্র বিধানসভা বা আইন সভায় নির্বাচিত হয়ে আসতে হবে। এখনও পর্যন্ত উদ্ধব কোনো নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেননি। রাজ্য বিধানসভার কোনো কক্ষেরই তিনি সদস্য নন। ঠাকরে পরিবারের প্রথম সদস্য হিসেবে উদ্ধবের পুত্র আদিত্য ওরলি বিধানসভা কেন্দ্র থেকে নির্বাচনে দাঁড়িয়েছিলেন। তিনি জয়ী হন। দলের কোনো এক এমএলএ ইস্তফা দিলে ওই কেন্দ্র থেকে উপনির্বাচনে লড়ে বিধানসভায় নির্বাচিত হয়ে আসতে পারেন উদ্ধব। সূত্রের খবর, তার পুত্র ওরলি কেন্দ্র থেকেও ইস্তফা দিয়ে বাবাকে নির্বাচনে দাঁড়ানোর সুযোগ করে দিতে পারেন।

বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি ১০৫টি আসনে, শিবসেনা ৫৬টি আসনে এবং কংগ্রেস-এনসিপি ৯৮টি আসনে জয়ী হয়। মহারাষ্ট্র বিধানসভায় মোট ২৮৮টি আসন রয়েছে। ১৯৬০ সালের ২৭ জুলাই জন্মানো উদ্ধব ২০১২ সালে বাবা প্রয়াত হওয়ার পর পার্টি সুপ্রিমোর দায়িত্ব গ্রহণ করেন। শিবসেনার মুখপত্র সামনার কাজকর্ম সামলানোর মধ্যে দিয়ে রাজনীতির সঙ্গে তিনি পরিচিত হয়ে ওঠেন। ১৯৯৯ সালে মহারাষ্ট্রে শিবসেনার মুখ্যমন্ত্রী নারায়ণ রাণের খোলাখুলি সমালোচনা করেন উদ্ধব। এর জেরে রানে দলের পদ থেকে ইস্তফা দিয়েছিলেন। তবে পরে এই প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীকে শিবসেনা থেকে বহিষ্কার করা হয়।

উদ্ধবের রাজনৈতিক কেরিয়ারের অন্যতম বড় সাফল্য হল ২০০২ সালে বৃহন্মুম্বই মিউনিসিপাল কর্পোরেশনের নির্বাচন। এই নির্বাচনে দলের বিশাল জয়ের পিছনে তিনিই ছিলেন অন্যতম কারিগর। ২০০৩ সালে উদ্ধব দলের কার্যকরী সভাপতি পদের দায়িত্ব গ্রহণ করেন। পরিবারের সদস্য রাজ ঠাকরের সঙ্গে ২০০৬ সালে তার প্রবল মতপার্থক্য দেখা দেয়। এর পর মহারাষ্ট্র নবনির্মাণ সেনা নামে একটি নয়া দল গঠন করেন রাজ। উদ্ধবের পুত্র আদিত্য হলেন যুব সেনার প্রেসিডেন্ট।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

স্যামসনের অবিশ্বাস্য ব্যাটিং, তবুও শেষ হাসি হাসল পাঞ্জাব

স্কোরবোর্ড বলছে, আইপিএল ২০২১-এর চতুর্থ ম্যাচে রাজস্থান রয়্যালসকে ৪ রানে হারিয়ে দিয়েছে পাঞ্জাব কিংস। তবে সেটা দেখে ম্যাচের আসল ছবি বোঝা যাবে...

ধর্নায় বসবেন মমতা

বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের রাজনৈতিক প্রচারের উপর 24 ঘন্টার নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে নির্বাচন কমিশন। এই নিয়ে তৃণমূল কংগ্রেস ক্ষোভ প্রকাশ করেছে। সেই...

মানুষ মরে এভাবেই, কেউ খোঁজ রাখে না

বিশ্বজিৎ মান্না ধরুন আপনি সকালে ঘুম থেকে উঠে, বাজারের থলে হাতে নিয়ে বেরোলেন। আপনার বাড়ির লোক বা আপনি কী...

ফের ক্ষমতায় দিদি, তবে বিজেপির আসন বাড়বে: বলছে সমীক্ষা

বিগত কয়েক বছরে পশ্চিমবঙ্গে অন্যতম বিরোধী দল হিসাবে বিজেপি নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছে। কেন্দ্রের শাসক দলের দাবি, রাজ্যে এবার তারাই ক্ষমতায় আসতে চলেছে।...

Recent Comments

error: Content is protected !!