শনিবার, সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২০
Home District পাকা রাস্তা হয়েছে, কিন্তু এখনও তিমিরেই পাথরপ্রতিমা

পাকা রাস্তা হয়েছে, কিন্তু এখনও তিমিরেই পাথরপ্রতিমা

২৫৫ Views

সুন্দরবনে রোজগার অন্যতম দুটি মূল ভরসা হল কৃষিকাজ এবং মৎসচাষ। তবে গত কয়েক বছরে এই দুটি ক্ষেত্রতেই স্থানীয়দের রোজগার ক্রমশ হ্রাস পেয়েছে। প্রাকৃতিক বিপর্যয় এবং কৃষি সরঞ্জামের মূল্য বৃদ্ধি এর অন্যতম বড় কারণ। দার্জিলিং কিংবা দিঘার মতো এখনও সুন্দরবনে পর্যটনের বিকাশ ঘটেনি। ফলে এই ক্ষেত্র থেকেও রোজগার সামান্য বলা যায়। সব মিলিয়ে সুন্দরবনের অর্থনীতি খুব একটা ভালো অবস্থায় নেই।

দক্ষিণ ২৪ পরগনার কাকদ্বীপ মহকুমার পাথরপ্রতিমা ব্লকে গত কয়েক বছর ধরে কৃষি থেকে রোজগার ক্রমশ কমেছে। ধান চাষের পাশাপাশি পাথরপ্রতিমার কিশোরীনগর, হরিমন্দির, বুড়ারবাঁধা, খগেন দাসের বাঁধা, ভগবতপুর, শিবগঞ্জ, মাধবনগর সহ বিস্তীর্ণ এলাকায় আলু, টমাটো, লঙ্কা, বেগুন, পান ইত্যাদি চাষও হয়। আগে যোগাযোগ ব্যবস্থা অনুন্নত থাকায় কৃষকরা তাদের ক্ষেতের ফসল বাজারে নিয়ে যেতে বেশ সমস্যায় পড়তেন। পাথরপ্রতিমা বাজার ছাড়া স্থানীয় আর একটি বড় বাজার বলতে কাকদ্বীপ। কিন্তু সেখানে আগে সরাসরি সড়কপথে যাওয়া যেত না। তবে কয়েকবছর আগে সেই সমস্যার একটা সমাধান হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী গ্রাম সড়ক যোজনায় পাথরপ্রতিমা সড়কপথে কাকদ্বীপের সঙ্গে জুড়েছে। কিন্তু কাজের কাজ খুব একটা যে হয়েছে সেটা জোর দিয়ে বলা যাবে না। অপ্রশস্ত এই সড়কের অনেক অংশেরই বেহাল দশা। পাথরপ্রতিমা বাজার থেকে হাওড়া, ধর্মতলার মধ্যে সরসারি বাস পরিষেবা চালু হলেও এখনও গ্রামের যোগাযোগ ব্যবস্থার সমস্যা মেটেনি।

পাথরপ্রতিমায় সোমবার হাট বসে। সপ্তাহের বাকি দিনগুলোতে বাজার বসলেও মূলত হাটবারের দিন কেনাকাটা বেশি হয়। সুন্দরবনের বিভিন্ন এলাকার মানুষ এই হাট থেকে তাদের সারা সপ্তাহের রসদ সংগ্রহ করেন। তবে সমস্যা হল, কৃষকরা তাদের ফসলের উপযুক্ত মূল্য সব সময় এখানে পান না। আলু, চাল, লঙ্কা, পান চাষীরা বাধ্য হয়ে স্বল্প দামে ফড়েদের কাছে তাদের ফসল বিক্রি করেন। তবে তারা যদি সরাসরি কাকদ্বীপের মতো অপেক্ষাকৃত বড় বাজারে গিয়ে তাদের পণ্য বিক্রির সুযোগ পেতেন, তাহলে তাদের সমস্যা কিছুটা লাঘব হত।

অনেক টালবাহানার পর হরিমন্দির বাজার থেকে ভগবতপুর কুমীর প্রকল্প পর্যন্ত পাকা রাস্তার কাজ শেষ হয়েছে। কিশোরীনগরের শেষ প্রান্তে সেতু চালু হওয়ায় এখন পর্যটকরা সরাসরি কলকাতা থেকে সড়কপথে ভগবতপুর কুমীর প্রকল্পে পৌঁছে যেতে পারেন। কিন্তু এই সেতুর অ্যাপ্রোচ রোড এখনও ঠিকভাবে নির্মাণ করা হয় নি। চারচাকা গাড়ি নিয়ে সেতুতে উঠতে সমস্যা হয়। রাস্তার অনেক অংশ খানা-খন্দে ভরা। পাথরপ্রতিমা বাজার পর্যন্ত বাস পরিষেবা থাকলেও গ্রামের বাকি অংশে এখনও বাস পরিষেবা শুরু হয়নি। ফলে ভগবতপুর, কিশোরীনগরের মতো পাথরপ্রতিমার প্রান্তিক এলাকার কৃষকরা তাদের ফসল খুব সহজে বাজারে নিয়ে যেতে পারেন না। কারণ পাকা সড়ক নির্মাণ করা হলেও সেখানে যানবাহন চলাচল ব্যবস্থা এখনও সুষ্ঠুভাবে গড়ে ওঠেনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

করোনা আক্রান্ত পাথরপ্রতিমার বিধায়ক সমীরকুমার জানা, আরোগ্য কামনায় পূজার আয়োজন করল তৃণমূল

বিশ্বজিৎ মান্না পাথরপ্রতিমার বিধায়ক সমীরকুমার জানা করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। তার দ্রুত আরোগ্য কামনায় বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণ করল তৃণমূল কংগ্রেস।...

আইপিএল ২০২০: সম্পূর্ণ সূচি, তারিখ, ভেনু

বহু প্রতিক্ষিত ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) সূচি ঘোষণা করা হয়েছে। এবারে ভারতের বদলে সংযুক্ত আরব আমিরশাহীতে অনুষ্ঠিত হবে আইপিএল। ১৯ সেপ্টেম্বর থেকে...

বাবর আজমকে দিশাহীন মনে হচ্ছে: শোয়েব আখতার

ম্যাঞ্চেস্টারের ওল্ড ট্রাফোর্ডে অনুষ্ঠি দ্বিতীয় টি-২০ আন্তর্জাতিক ম্যাচে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ১৯৬ রানের টার্গেট সহজে পৌঁছে গিয়ে ৫ উইকেটে জয় অর্জন করেছে আয়োজক...

আইপিএল ২০২০: চেন্নাই সুপার কিংসে রায়নার স্থান দখল করতে পারেন ঋতুরাজ গায়কোয়াড়

ইদানিং বেশ কঠিন সময়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে চেন্নাই সুপার কিংস। আইপিএল ২০২০ শুরু হওয়ার আগেই স্কোয়াডের মোট ১২ জন সদস্যের কোভিড-১৯ পরীক্ষার...

Recent Comments

error: Content is protected !!