শনিবার, ডিসেম্বর ৫, ২০২০
Home country “সুন্দরবন আমাদের মা, আমাদের অন্নদাতা”

“সুন্দরবন আমাদের মা, আমাদের অন্নদাতা”

৩১৫ Views

বুলু হালদার যখন তার বাড়ির দরজার সামনে নিজের পুরানো বন্ধুর মৃতদেহ ভেসে উঠতে দেখেছিলেন, তখন তিনি বুঝতে পেরেছিলেন, তার বাড়ির অস্তিত্বও প্রবল সঙ্কটে পড়ে গিয়েছে। বাংলাদেশের দক্ষিণ পশ্চিম এলাকায় খুলনা জেলার পূর্ব ধাঙ্গমারিতে অনেকদিন ধরেই রক্তচক্ষু দেখাচ্ছিল পুসুর নদী। প্রথমে শক্তিশালী ঝড়ে বাঁধের কংক্রিকেটর স্তর চৌচির হয়ে গিয়েছিল। তারপর ২০১৭ সালের শেষ দিকে ভঙ্গুর নদীবাঁধের অবশিষ্টাংশ গিলে খেতে শুরু করে পুসুর। স্থানীয় বাসিন্দারা বালির বস্তা নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন, যাতে গ্রামে জল ঢোকা আটকানো যায়। সাময়িকভাবে তারা রেহাই পেয়েছিলেন। নদীর জল ফের যখন ফুলেফেঁপে উঠল, তখন গোটা গ্রাম ভেসে গিয়েছিল। তার পুরানো বন্ধুর মৃতদেহ দরজার সামনে ভেসে এসেছিল। গ্রামে পানীয় জলের ব্যাপক সঙ্কট তৌরি হয়। বুলুর এক কামরার কুঁড়ে ঘর তখন হাঁটু সমান জল।

তিনি বলেন, আমার বাড়ি বাঁচানোর জন্য তখন আমার পক্ষে কিছু করা সম্ভব ছিল না। আমরা স্রেফ অসহায় ছিলাম, যেমনটা শিশুরা অনেকসময় অনুভব করে।

গ্রামের পুরানো বাসিন্দা প্রায় ৫০ বছর বয়সী বিধবা বুলু অন্তত কিছুটা আন্দাজ করতে পেরেছিলেন যে কি ঘটতে চলেছে। তিনি নিজের চোখের সামনে দেখেছেন, দিনকে দিন সুন্দরবনের ম্যানগ্রোভ কেমন যেন গুটিয়ে যাচ্ছে। গাছের সংখ্যা হ্রাস পাচ্ছে। ব্যাপারটা সম্পূর্ণভাবে তার মাথায় ঢোকেনি। তবে তিনি জানতেন, বিপদ একটা আসছেই। তিনি খেয়াল করতেন কিভাবে জঙ্গল দুর্বল হয়ে যাওয়ার পর জলের সীমা বৃদ্ধি পাচ্ছিল। বুলু একটা ব্যাপারে অবাক হয়েছিলেন, নদীবাঁধ দুর্বল হওয়া সত্ত্বেও কিভাবে এতদিন ধরে তা জলের তীব্র বাধা প্রতিরোধ করতে সক্ষম হয়েছে। তিনি বলেন, গাছ আমাদের বাঁচায়। তবে আমরা তাদের সঙ্গে খারাপ আচরণ করি। সুতরাং আমরা এখন তার পরিণাম দেখতে পাচ্ছি।

বাংলাদেশ এবং প্রতিবেশী দেশ ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের সুন্দরবনে পূর্ব ধাঙ্গামারির মতো হাজার হাজার গ্রাম রয়েছে, যেগুলি জলবায়ু পরিবর্তনের (Climate Change) বিরুদ্ধে তাদের স্বাভাবিক প্রতিরোধ ব্যবস্থা ধীরে ধীরে হারাচ্ছে। গোটা সুন্দরবনের ভূমিস্তর সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে খুব একটা উঁচু নয়। এই এলাকায় অসংখ্য নদী আছে। এদের মধ্যে কিছু নদী মূলত হিমালয়ের বরফগলা জলে পুষ্ট। বঙ্গোপসাগর উপকূলবর্তী এই অঞ্চলে প্রায়শই আছড়ে পড়ে ভয়ঙ্কর সাইক্লোন। এক নিমেষে সব কিছু তছনছ করে দেয়। বহু প্রাণহানি, সম্পদহানি ছাড়াও দেখা দেয় বন্যা। সব কিছু ভাসিয়ে নিয়ে সুন্দরবনকে প্রায় পথে বসিয়ে দেয়। কিন্তু প্রকৃতির এই রোষের সামনে সুন্দরবন একপ্রকার অসহায়। সুন্দরবনের মাটির উর্বরতা নিয়ে কোনো প্রশ্ন নেই। কিন্তু এলাকায় কৃষকদের মধ্যে সব সময় একটা ভয় কাজ করে। ভালো ফসল হলেও যেকোনো সময় বন্যা, ঘূর্ণিঝড়ের মতো কোনো প্রাকৃতিক বিপর্যয় তাদের পরিশ্রমের ফসলকে চোখের পলকের মধ্যেই না শেষ করে দেয়।

সমগ্র বাংলাদেশ এবং ভারতের পূর্বাংশের কিছু এলাকাকে রক্ষাকবচের মতো সুরক্ষা প্রদান করে সুন্দরবন। প্রায় ৪,০০০ বর্গমাইল জুড়ে অবস্থিত বিশ্বের বৃহত্তম ম্যানগ্রোভ অরণ্য ঘূর্ণিঝড়ের মতো প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের হাত থেকে মূল ভুখণ্ডকে রক্ষা করে। কয়েকমাস আগে ভারত এবং বাংলাদেশের সুন্দরবনে আছড়ে পড়া ঘূর্ণিঝড় বুলবুল ফের একবার সেটাই চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে। কলকাতা, ঢাকার মতো শহরে এই ঝড়ের সামান্য আঁচ পড়েছে। কিন্তু সুন্দরবন না থাকলে এশিয়ার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ এই দুই শহরের চিত্রটা একটু অন্যরকম হতো।

সুন্দরবনের বাসিন্দাদের অনেকের কাছে জঙ্গল মানেই মধু এবং এর জল হল মাছের উৎস। বাংলাদেশের হরিনগরের বাসিন্দা, স্থানীয় মৎসজীবীদের একটি সংগঠনের সেক্রেটারি জয়দেব সর্দার বলেন, সুন্দরবন আমাদের মা। তিনি আমাদের রক্ষা করেন। আমাদের কাজ যোগান।

তবে বছরের পর বছর ধরে প্রকৃতির উপর মানুষের অত্যাচার চরম সীমায় পৌঁছে গিয়েছে। বিশেষত সুন্দরবনের ম্যানগ্রোভ অরণ্যের দিকে তাকালে সেটা কিছুটা আন্দাজ করা যায়। কাঠের অবৈধ ব্যবসার জন্য গাছে কোপ, বসতি স্থাপনের জন্য অবৈধভাবে জঙ্গল সাফ সহ নানা বিপদের মুখে পড়েছে সুন্দরবনের বিস্তীর্ণ জঙ্গল। অন্যদিকে গোদের উপর বিষ ফোঁড়ার মতো হাজির হয়েছে জলবায়ু পরিবর্তন। এর দরুণ সুন্দরবনের নদীর জল আরও বেশি নোনা হচ্ছে। এত নোনা জলে ঝড় প্রতিরোধকারী অনেক গাছ টিকে থাকতে পারছে না। বাংলাদেশের ইউনিভার্সিটি অব ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনলজির অধ্যাপক মাশফুকস সালেহিন বলেন, জলে লবণের পরিমাণ দিনে দিনে বেড়েই চলেছে। এই অতিরিক্ত লবণাক্ত জল নতুন নতুন এলাকায় প্রবেশ করবে। এটা একটা বড় সমস্যা হতে চলেছে।

বর্তমান গতিতে যদি সমুদ্র পৃষ্ঠের জলস্তর বাড়তে থাকে তাহলে এই শতকের শেষ নাগাদ সুন্দরবনের জলস্তর প্রায় ছয় ফুটের অধিক বৃদ্ধি পাবে। কেবলমাত্র বাংলাদেশে অবস্থিত সুন্দরবনের ৮০০ বর্গমাইল এলাকায় জলের তলায় চলে যাবে। সুন্দরবনের অনেক ভূমি এলাকা ইতিমধ্যে গায়েব হতে শুরু করেছে। ম্যানগ্রোভের শিকড় আলগা হয়ে যাওয়ায় ভূমিক্ষয় প্রতিরোধ করা কঠিন হয়ে পড়ছে। এর আদর্শ উদাহরণ দেখা যাবে পশ্চিমবঙ্গের সুন্দরবনে। এক শতক আগে ম্যানগ্রোভ অরণ্যে ঢাকা লোহাচড়া, সুপারিভাঙ্গা এবং বেডফোর্ড এখন পুরোপুরিভাবে নিশ্চিহ্ন হয়েছে। অন্যদিকে দ্রুত গতিতে সাগরদ্বীপের ভূমিক্ষয় ঘটছে। একদিকে সাগরদ্বীপের ভূমিভাগ কমছে, অন্যদিকে পার্শ্ববর্তী বিভিন্ন এলাকা থেকে অনেকে ঘরবাড়ি হারিয়ে এই দ্বীপে এসে আস্তানা গড়ছেন। সাগরদ্বীপে কৃষি উৎপাদনের পরিমাণ দিনকে দিন হ্রাস পাচ্ছে। এলাকার বাসিন্দারা এখন কৃষিকাজের বদলে মূলত অস্থায়ী শ্রমিক হিসেবে ভিন রাজ্যে কাজ করেন।

সুন্দরবনের কিছু কিছু এলাকায় সমুদ্র পৃষ্ঠের জলস্তর বছরে ২০০ গজ করে বাড়ছে। যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাসোসিয়েট প্রফেসর তুহিন ঘোষ বলেন, সুন্দরবনের মানুষ অনেক কিছু হারাবেন। সেটা এখন থেকেই শুরু হয়ে গিয়েছে। ম্যানগ্রোভ অরণ্য থেকে সামান্য দূরে থাকা কলকাতা এবং ঢাকার মতো শহর অবস্থিত। ম্যানগ্রোভ অরণ্য গায়েব হতে থাকলে এই শহরগুলি সাইক্লোনের মুখে অসহায় হয়ে পড়বে।

২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে বছরে তৃতীয়বারের জন্য বাংলাদেশের পূর্ব ধাঙ্গমারির পশ্চিমাংশে চুনার নদীর বাঁধ ভেঙে যায়। ষোলোটি বাড়ি ভেসে যায়। যদিও স্থানীয়দের কাছে এটা নতুন কোনো ব্যাপার নয়। তারা এই ধরণের ঘটনার সঙ্গে অভ্যস্ত হয়ে উঠেছেন। সেই বছর বাংলাদেশে ধানের ফলন ব্যাপকভাবে হ্রাস পেয়েছিল। এর ফলে খাদ্যশস্যের দাম বৃদ্ধি পেয়েছিল। নদীবাঁধ ভেঙে জমিতে নোনা জল প্রবেশ করার ফলে সব্জির ফলনও ব্যহত হয়। কৃষক বিমল সর্দার বলেন, জলের এই তাণ্ডবের জন্য কখনও কখনও মনে হয় কেবলমাত্র কাঠমিস্ত্রিদেরই কাজ রয়েছে।

মূল লেখাটি ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক চ্যানেলের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত হয়েছিল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

২০২১ আইপিএলে দুটি বিভাগে খেলবে ১০টি দল

আসন্ন ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএল) দুটি নতুন দল দেখা যাবে। সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা গিয়েছে, এই ব্যাপারে ইতিমধ্যে অনুমোদন প্রদান করেছে দ্য বোর্ড...

বাবা হতে চলেছেন কেন উইলিয়ামসন

নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দলের অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসনের জীবনে ফের খুশির খবর। হ্যামিলটনে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে টেস্ট ম্যাচে সদ্য ঝকঝকে শতরান করেছেন এই কিউই...

সুন্দরবনে রোপণ করা হল ৫ কোটি ম্যানগ্রোভ চারা

শুধু সুন্দরবন নয়, কলকাতা সহ গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গের রক্ষাকবচের মতো কাজ করে ম্যানগ্রোভ অরণ্য। কিন্তু কয়েক মাস আগে সুপার সাইক্লোন আম্ফানের তাণ্ডবে ব্যাপকভাবে...

‘লিফট’ এবং ‘প্যারাশুটের’ ভিড়ে হারিয়ে গিয়েছে রাজনৈতিক প্রতিশ্রুতি

বিশ্বজিৎ মান্না দাদার অনেক অভিজ্ঞতা। পোড়খাওয়া রাজনীতিবিদ। কিন্তু বর্তমানে তিনি শিশুসুলভ আচরণ করছেন। এবং ‘দাদার অনুগামীরাও’ তাই। যেখানে সেখানে...

Recent Comments

error: Content is protected !!