মঙ্গলবার, জানুয়ারি ২৬, ২০২১
Home District সুন্দরবনে কাঁকড়া ধরার সময় মৎসজীবীকে টেনে নিয়ে গেল বাঘ

সুন্দরবনে কাঁকড়া ধরার সময় মৎসজীবীকে টেনে নিয়ে গেল বাঘ

৩৯০ Views

রফিক ঢালী, ক্যানিং

সুন্দরবনের জঙ্গলে ফের বাঘের আক্রমণে পড়লেন এক মৎস্যজীবী। ওই মৎস্যজীবীর নাম বাসুদেব সরকার। বয়স ৫২ বছর। নিহতের বাড়ি দক্ষিণ ২৪ পরগনার গোসাবা ব্লকের সুন্দরবনের উপকূলীয় থানার কুমিরমারি গ্রামে।

স্থানীয় বনদপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, রবিবার সকালে কুমিরমারি গ্রাম থেকে তিনজনের একটি মৎস্যজীবী দল নৌকায় করে কাঁকড়া সংগ্রহ করতে গিয়েছিলেন সুন্দরবনের ঝিলা দুই নম্বর জঙ্গলে। জঙ্গলে নেমে খাদ কেটে কাঁকড়া সংগ্রহের সময় হঠাৎই বাঘ লাফিয়ে পড়ে কাঁকড়া শিকারি বাসুদেবের উপরে। সঙ্গীরা কিছু বুঝে ওঠার আগেই বাঘ নিয়ে চলে যায় বাসুদেবকে। এই ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী স্বপন মণ্ডল বলেন, কয়েক হাত দূরে আমরা তিনজন কাঁকড়া সংগ্রহ করছিলাম। তখনই হঠাৎ একটা শব্দ শুনতে পাই। তারপর পিছনে ফিরে দেখি বাসুদেবকে মুখে করে টেনে নিয়ে যাচ্ছে একটি বাঘ। বাসুদেবের কাছেই এক মহিলা মৎসজীবী ছিলেন। তিনি চিৎকার করেন। তাতেও বাঘটি বাসুদেবকে ছেড়ে দেয়নি। তারপর আমরা কোদাল নিয়ে কিছুদূর সেই বাঘকে তাড়াও করি। কিন্তু গভীর জঙ্গলে ঢুকে পড়ে বাঘ। কোনভাবেই আর তাকে ছাড়িয়ে আনা গেল না। বাসুদেবাবুর মৃত্যু হয়েছে বলেই আশঙ্কা করা হচ্ছে। এদিকে এই ঘটনার পর মৎস্যজীবীদের এই দলটি বাগনা বনদপ্তরের রেঞ্জ অফিসে বিষয়টি জানান। বনদপ্তরের একটি তদন্তকারী দল ঘটনাস্থলে বিষয়টি খতিয়ে দেখেন। বনদপ্তরের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, মৎসজীবীদের কাছে জঙ্গলে প্রবেশের বৈধ অনুমতি পত্র ছিল কি না তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। তবে প্রাথমিকভাবে বনদপ্তরের আধিকারিকরা জানিয়েছেন, মৎসজীবীরা কাঁকড়া সংগ্রহ করতে বেআইনিভাবে জঙ্গলে ঢুকেছিলেন। ফলে সরকারি কোনো ক্ষতিপূরণ আদৌ পাওয়া যাবে কিনা তা নিয়ে সমস্যা দেখা দিয়েছে। গত কয়েকমাস ধরে এমনিতেই সুন্দরবনের মৎসজীবীদের সময়টা ভালো যাচ্ছে না। করোনাভাইরাসের প্রকোপ দেখা দেওয়ার পর আন্তর্জাতিক বাজারে কাঁকড়ার চাহিদা ব্যাপক কমে গিয়েছে।

করোনাভাইরাসের প্রকোপের পর থেকে সঙ্কটে সুন্দরবনের কাঁকড়া ব্যবসায়ীরা

উল্লেখ্য, করোনাভাইরাসের কারণে গত জানুয়ারি মাসের শেষের দিক থেকে চিনে কাঁকড়া রফতানি বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। এর ফলে ব্যাপকভাগে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিলেন সুন্দরবনের কাঁকড়া ব্যবসায়ীরা। আন্তর্জাতিক বাজারে যে কাঁকড়া ১৫০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছিল, সেই কাঁকড়া ৩০০ টাকা কেজিতেও কেউ কিনতে রাজি হচ্ছিলেন না। তাই সুন্দরবনের মৎসজীবীরা কাঁকড়া ধরায় উৎসাহ দেখাচ্ছিলেন না। তবে খুশির খবর হল, কিছুদিন সম্প্রতি সুন্দরবনের কাঁকড়া নিতে শুরু করেছে সিঙ্গাপুর এবং হংকংয়ের মতো দক্ষিণ এশিয়ার বিভিন্ন দেশ। তাই সুন্দরবনের মৎসজীবীরা কাঁকড়া ধরতে জঙ্গলে যাচ্ছেন। অবশ্য বাঘের আক্রমণ কোথাও যেন মৎসজীবীদের সেই ছন্দে তাল কাটল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

সুন্দরবনে ৪২৮ প্রজাতির পাখি রয়েছে

শুধু রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার আর কুমীর নয়। সুন্দরবনে অনেক প্রজাতির প্রাণী দেখা যায়। এদের মধ্যে অন্যতম হল পাখি। সুন্দরবনে মোট ৪২৮ প্রজাতির...

সিকিমের নাকুলা পাস সীমান্তে ভারত-চিন সেনার হাতাহাতি

লাদাখ সেক্টর ভারত-চিন সেনার মধ্যে বিগত কয়েকদিন ধরে একটা চাপা উত্তেজনা তৈরি হয়েছিল। এবার সিকিমের কাছে চিন সীমান্তে সরাসরি সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ল...

ফ্রায়েড চিকেন আর পিৎজার যুগেও প্রাসঙ্গিকতা হারায়নি হরিদাস মোদক

বিশ্বজিৎ মান্না আজ যা আছে, কাল হয়তো থাকবে না! বা বদলে যাবে। এটাই নিয়ম। ঠিক যেমন আমাদের প্রিয় শহর...

ভারত-ইংল্যান্ড টেস্ট সিরিজ: প্রথম দুটি ম্যাচে মাঠে দর্শক থাকবে না

ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে আসন্ন টেস্ট সিরিজের মাধ্যমে দীর্ঘ প্রায় এক বছর পর ভারতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট শুরু হবে। ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে চারটি টেস্ট ম্যাচ খেলবে...

Recent Comments

error: Content is protected !!