রবিবার, এপ্রিল ১৮, ২০২১
Home country কুকুর কেন আপেল চেটে খায়?

কুকুর কেন আপেল চেটে খায়?

৭১৭ Views

(দিল্লিতে কর্মরত এক সাংবাদিকের সঙ্গে আলাপচারিতার ভিত্তিতে এই প্রতিবেদন লেখা হয়েছে)

পাঁচুগোপাল মান্না

নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদকে কেন্দ্র করে গত রবিবার থেকেই উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে দিল্লি। রাজধানীর উত্তর-পূর্বাংশে মূলত গণ্ডগোল হচ্ছে। যেদিন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ভারতে পা রাখলেন, সেদিন থেকেই হিংসাত্মক ঘটনা বেড়ে গিয়েছে। সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা গিয়েছে, গত কয়েকদিনের হিংসাত্মক ঘটনায় মোট ৩৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। চিন্তার বিষয় হল, মৃতদের মধ্যে অধিকাংশের দেহে বুলেটের চিহ্ন দেখা গিয়েছে।

দিল্লিতে তোলা নিজস্ব চিত্র।

পরিস্থিতি নিজের চোখে দেখতে সম্প্রতি সেখানে গিয়েছিলেন দিল্লিতে বহুদিন ধরে কর্মরত এক দৈনিক সংবাদপত্রের সাংবাদিক। তার সঙ্গে আলাপচারিতায় যে ছবি উঠে এল, তা এক কথায় ভয়ঙ্কর। দিল্লির উত্তর-পূর্বাংশে, যেখানে মূলত এই গণ্ডগোল দেখা দিয়েছে, সেটা মূল রাজধানী শহর থেকে বেশ কিছুটা দূরে, যমুনা নদীর কাছে। বুধবারও সেখানে গিয়ে দেখা যায় থমথমে পরিবেশ। একের পর এক জ্বালিয়ে দেওয়া দোকানপাট, গাড়ি, বাইক ইত্যাদির ধ্বংসাবশেষ পড়ে রয়েছে। তারই মধ্যে একটি দৃশ্য দেখে গায়ে কাঁটা দিল ওই সাংবাদিক বন্ধুর।

পুলিশ এবং আরও বেশ কয়েকজন মিডিয়াকর্মীর সঙ্গে তিনি ঘটনাস্থলে গিয়েছিলেন। সেখানে গিয়ে তিনি দেখেন, সম্ভবত একটি ফলের দোকানে ব্যাপক লুটপাট চালানো হয়েছিল। তার চিহ্ন এখনও স্পষ্ট। আশেপাশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে দলাপাকানো আপেল, লেবু, কলা ইত্যাদি। তার মধ্যেই দেখা গেল, দলাপাকানো একটি আপেল চেটে চেটে খাচ্ছে রাস্তার একটি কুকুর। দৃশ্যটা দেখে চোখ থমকে যায় ওই সাংবাদিকের। পাশে থাকা পুলিশকর্মীকে তিনি বলে ওঠেন, কুকুর কি আপেল খায়! এ তো তাজ্জব ব্যাপার। এই প্রথমবার দেখছি।

দিল্লিতে তোলা নিজস্ব চিত্র।

তবে সাংবাদিকের এই বিস্ময় প্রকাশের পর ওই পুলিশকর্মী যে জবাব দিলেন, তা রীতিমতো গায়ে কাঁটা দেওয়ার মতো এবং তা থেকে আরও একবার স্পষ্ট হয়, দিল্লিত গত কয়েকদিনে হিংসার তীব্রতা ঠিক কতটা ছিল। যাইহোক, ওই পুলিশকর্মী বলেন, কুকুর আপেল খায় না ঠিকই। তবে ওই দলা পাকানো আপেল কুকুর চেটে চেটে খাচ্ছে, কারণ তাতে তখনও লেগে রয়েছে রক্ত। প্রায় টাটকা, ডেলা পাকানো, মানুষের রক্ত। পুড়ে ছাই হয়ে, পচে-গলে যাওয়া কালচে লাল রঙের কয়েকশ আপেল, কমলালেবুর রসের সঙ্গে খুব সম্ভবত মিশে গেছে মানুষের রক্ত। সেটাই চাঁটছে কুকুর।

ওই সাংবাদিক মশাই আর কোনো প্রশ্ন করার সাহস পেলেন না। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তিনি অন্যান্য সংবাদকর্মীদের সঙ্গে গ্রাউন্ড জিরোতে প্রবেশ করলেন। চারিদিকে পুলিশ আর নিরাপত্ত কর্মীতে ছয়লাপ। প্রত্যেকের পরিচয় এবং পরিচয় প্রমাণের কার্ড দেখার পর তবেই সেখানে প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে।

দিল্লি থেকে ফোনে এই অভিজ্ঞতার কথা জানাতে গিয়ে তিনি বলে ওঠেন, আমি যেদিন ওখানে যাই, সেদিন কলকাতায় আমার পরিবারের কাউকে এ ব্যাপারে কিছুই জানাইনি, যে আমি ঘটনাস্থলে যাচ্ছি। পরে যখন জানালাম, তখন বাড়ির লোকজন প্রচুর বকাঝকা করেছে। কিন্তু কি করব! পেশার তাগিদে তো যেতেই হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

স্যামসনের অবিশ্বাস্য ব্যাটিং, তবুও শেষ হাসি হাসল পাঞ্জাব

স্কোরবোর্ড বলছে, আইপিএল ২০২১-এর চতুর্থ ম্যাচে রাজস্থান রয়্যালসকে ৪ রানে হারিয়ে দিয়েছে পাঞ্জাব কিংস। তবে সেটা দেখে ম্যাচের আসল ছবি বোঝা যাবে...

ধর্নায় বসবেন মমতা

বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের রাজনৈতিক প্রচারের উপর 24 ঘন্টার নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে নির্বাচন কমিশন। এই নিয়ে তৃণমূল কংগ্রেস ক্ষোভ প্রকাশ করেছে। সেই...

মানুষ মরে এভাবেই, কেউ খোঁজ রাখে না

বিশ্বজিৎ মান্না ধরুন আপনি সকালে ঘুম থেকে উঠে, বাজারের থলে হাতে নিয়ে বেরোলেন। আপনার বাড়ির লোক বা আপনি কী...

ফের ক্ষমতায় দিদি, তবে বিজেপির আসন বাড়বে: বলছে সমীক্ষা

বিগত কয়েক বছরে পশ্চিমবঙ্গে অন্যতম বিরোধী দল হিসাবে বিজেপি নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছে। কেন্দ্রের শাসক দলের দাবি, রাজ্যে এবার তারাই ক্ষমতায় আসতে চলেছে।...

Recent Comments

error: Content is protected !!