রবিবার, জুন ২০, ২০২১
Home feature সত্যিই স্যার আপনাদেরই হবে!

সত্যিই স্যার আপনাদেরই হবে!

৩৩৯ Views

সাগ্নিক চৌধুরী

একটা ধর্ষণ হল দেশের এক প্রান্তে আর সারা দেশের মানুষ সেই শুনে খেপে উঠল। যদিও এটাই যে প্রথম আর এটাই যে শেষ তা বলা দুস্কর তবুও স্যার আপনাদের মধ্যে থাকা সেই ভারতবাসী জেগে উঠল আর আপনারা এক সাথে দিকে দিকে ধন্যা, মিছিল, সুশীলদের মঞ্চ শুরু করে দিলেন। ওই চারজনকে এখনই ফাসি দিতে হবে নইলে গদি ছাড়তে হবে। এই শুনে শুকিয়ে গেল কিছু নেতা মন্ত্রীর, প্রশাসন নড়ে চড়ে বসল। শুরু হল চিরুণী তল্লাশি তারপর সম্ভাব্য অপরাধী হিসেবে গর্ত থেকে বেরিয়ে এল চারজন, এসেই সোশ্যাল মিডিয়া থেকে শুরু করে সংবাদ মাধ্যম সর্বত্র ছেয়ে গেল তাদের ছবি। কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে ভাইরাল হয়ে গেল মিলিয়ন, ট্রিলিয়ন ভিউয়ার ঝাঁপিয়ে পড়ে দেখতে লাগল আর সবাই সেখানে উকিল আর বিচারপতি হয়ে উঠল। নিজের মতন করে মতামত দিয়ে ভরিয়ে দিল কমেন্ট বক্স। শেয়ার করা হল তাদের ছবি “দোষীদের শাস্তি চাই” লিখে। দিকে দিকে স্লোগান আর মতামতের ছড়াছড়ি। কেউ কেউ তো আবার ধর্ষিতার কোনও সময়ে বানানো টিকটক ভিডিও ভাইরাল করে ফেমাস হয়ে গেল। তারপর এলো সেই মহেন্দ্রক্ষণ যখন তাদের অপরাধের জায়গাতে নিয়ে গিয়ে তদন্ত করার সময় তথাকথিতভাবে তারা পালানোর চেষ্টা করলে তাদের গুলি করে হত্যা করে আবার সেই সোশ্যাল মিডিয়াতে খবর ছড়িয়ে দেওয়া হল। আর তার পর থেকেই সেই আইপিএস অফিসার হয়ে গেলেন রাতারাতি হিরো। এ যেন কাঁচা হাতে লেখা এক দক্ষিণের সিনেমার চিত্রনাট্য। যার ঝপ করে টানা কনক্লুশন সবার চোখে জল আর মুখে হাসি এনে দিয়েছে। সত্য সেলুকাস, আছ কোথায়?

সবই তো বুঝলাম স্যার, মানুষের রাগ, দুঃখ এবং আবেগ সবই তো সামনে এলো কিন্তু এই খিস্তি আর খেউরের রাজনীতি আর সামাজিক ভাবনার নিচে যেটা চাপা পড়ে রয়ে গেল তা হল রাষ্ট্রতত্ত্ব। এখন আপনি বলবেন একটা নিরীহ বাচ্চা মেয়েকে ওরা ধর্ষণ করল আর তুমি, শালা রাষ্ট্রতত্ত্ব মারাচ্ছ? সমাজের এই নিকৃষ্টতম কীটদের শাস্তি হওয়া উচিত তা আমিও বিশ্বাস করি। কিন্তু এই যে চোখের বদলে চোখ আর ধর্ষণ করলেই দৃষ্টান্তমূলক এনকাউন্টার এটা যদি সমাধান হত তাহলে আর রাষ্ট্র এত মোটা-সোটা বইতে এত আইন বানালো কেন স্যার? বলতেই তো পারত যে, কেউ যদি চুরি করে তাহলে তার হাত কেটে দাও কেউ যদি খুন করে তাকে গণপিটুনি দাও, কেউ যদি ধর্ষণ করে তার যৌনাঙ্গ কেটে দাও! এটাই তো তাহলে ঠিক হত নয় কি?

কিন্তু যদি কোনও অপরাধী নিকৃষ্ট অপরাধ করে আর তাকে শাস্তি দিতে গিয়ে জনগণ যদি আরও নিচে নামে তাহলে তাদের সেই অপরাধীর সাথে আপনার পার্থক্যটা কোথায় থাকল স্যার? যদি এইভাবে একটা মারলে আমিও পাল্টা আরও দুটো মারব আর এই মারামারির চক্করে পড়ে প্রকাশ ঝা-এর রগরগে চিত্রনাট্য হবে কিন্তু বিচারের বাণী নিভৃত অবকাশে চোখের জল ফেলবে।

আর এইসব ক্ষেত্রে যে বিষয়টা বার বার প্রমাণিত হয়েছে, সাধারণত: সেইসব অপরাধীরা শাস্তি পেয়েছেন যারা সমাজের একেবারে নিচুতলার লোক মানে যাদের আর্থিক অবস্থা তেমনভাবে ভাল নয়। কিন্তু এই একই রকমের অপরাধ করে বার বার নিয়ম আর কানুনের ফাঁক-ফোকর দিয়ে তারা ফস্কা গেরো হয়ে গেছেন বড়লোকের ছেলে পুলেরা। আর আপনি স্যার তখন দিবানিদ্রা থেকে উঠে সবে মাত্র চায়ের কাপে হালকা চুমুক দিয়েছেন।

আমি কিন্তু বার বার একটা কথা বলছি, ধর্ষণ একটা অতীব নিকৃষ্ট আচরণ, এটির অপরাধীকে চরম শাস্তি দেওয়া উচিত সে বিষয়ে আপনার যেমন কোনও সন্দেহ নেই আমারও নেই। আমার শুধু প্রশ্ন এই পদ্ধতিটি নিয়ে। আসলে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের ছাত্র তো তাই নীতিবোধ তলানিতে এসে ঠেকলেও এখনও শেষ হয়ে যায়নি। তাই মাঝে মধ্যে তেল শুকিয়ে যাওয়া সলতের মতন ফুরুৎ ফুরুৎ করে জ্বলে ওঠে আর কী!

লেখকের ব্যক্তিগত মতামত। এর জন্য দৈনিক সুন্দরবন কোনোভাবেই দায়ী নয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

আমার স্কুল: পাথরপ্রতিমা আনন্দলাল আদর্শ বিদ্যালয়

ইন্দ্রস্কুল প্রায় সবারই কাছেই প্রিয়। স্কুল এমনই একটি জায়গা যেখানে জীবনের শুরুর দিকে একটা বড় অংশ আমরা কাটাই, অনেক নতুন বন্ধু তৈরি...

ঘোড়ামারা: অভিশাপ না প্রশাসনিক অবহেলা? ক্ষয়িষ্ণু দ্বীপে ভাসমান কিছু প্রশ্ন

বিশেষ প্রতিবেদন লিখেছেন প্রত্যয় চৌধুরীজমি নেই, ঘর নেই, বাড়ি নেই। চারিদিকে শুধু জল আর জল! প্রকৃতি যে এরকম নিষ্ঠুর হতে পারে, তা...

নরহরিপুরে ত্রাণ বিলি

দুই সপ্তাহ হতে চলল, এখনও ইয়াস বিধ্বস্ত সমস্ত এলাকায় ক্ষয়ক্ষতিপূরণ পৌঁছায়নি। দক্ষিণ ২৪ পরগণার বেশ কিছু এলাকার বাসিন্দাদের মধ্যে এখনও বিতরণ করা...

ইয়াস: ক্ষতিগ্রস্ত ঘোড়ামারা, পাথরপ্রতিমা বাজারেও ঢুকেছে জল

আম্ফানের পরেই একটি বিধ্বংসী ঝড়ের সাক্ষী হল সুন্দরবন। গত বছরের আম্ফানের মতো এবারও সাইক্লোন ইয়াসে অনেক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। নদীবাঁধ ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।সুন্দরবনের...

Recent Comments

error: Content is protected !!